পরীমনির ওজন কমার অপেক্ষায় পরিচালক

বিপ্লবী প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের জীবন অবলম্বনে ‘প্রীতিলতা’ ছবি তৈরির কাজে হাত দিয়ে বেশ সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন তরুণ প্রতিভাবান চলচ্চিত্র পরিচালক রাশিদ পলাশ। সিনেমাটির মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করছেন এই সময়ের আলোচিত ও সমালোচিত নায়িকা পরীমনি। সম্প্রতি মা’দক মাম’লায় আ’টক হোন এই নায়িকা। বর্তমানে জা’মিনে মুক্তি পেয়েছেন, তবে

‘প্রীতিলতা’ সিনে’মাটি নিয়ে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় পত্রিকা আনন্দবাজারের মুখোমুখি হয়েছিলেন ছবিটির নির্মাতা রাশিদ পলাশ। সাক্ষাতকারের কিছু বিশেষ অংশ সময় সংবাদের পাঠকদের জন্য নিচে তুলে ধরা হলো।

প্রশ্ন: ‘প্রীতিলতা’ কি আপনার প্রথম সিনেমা?
উত্তর: না। ২০১৫ সালে প্রথম ছবি ‘নাইওর’ শেষ করি। কিন্তু সিনেমাটি দেখনো মুক্তি পায়নি। কখন পাবে মুক্তি কিংবা আদৌ মুক্তি পাবে কি না জানি না। ‘নাইওর’-এর প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এটা বলতে পারবে। আমি খুব চাই ‘নাইওর’ ছবিটি মুক্তি পাক। দারুণ একটা গল্প ছিল এই চলচ্চিত্রে। তা ছাড়া প্রথম ছবি, অন্য আবেগ।

প্রশ্ন: ‘প্রীতিলতা’ কি তাহলে আপনার দ্বিতীয় সিনেমা?
উত্তর: না। ২০১৭ সালের শুরুতে আমার ছোট ছবি ‘কব’র’ মুক্তি পায়। পল্লীকবি জসীম উদ্দীনের ‘কবর’ কবিতা অবলম্বনে ছবিটা তৈরি করি। আসলে সাহিত্য আমাকে টানে। এ ধরনের কাজে আলাদা আনন্দ পাই। এর পর আমি ‘পদ্মাপুরাণ’ ছবি নির্মাণ করি। ‘পদ্মাপুরাণ’ মুক্তি পাচ্ছে চলতি বছরের অক্টোবরে।

প্রশ্ন: ‘পদ্মাপুরাণ’ দেরিতে মুক্তির কারণ?
উত্তর: সিনেমাটির কাজ করেছিলাম ২০১৭ সালের শেষ দিকে। ২০১৯-এর শেষদিকে কাজ শেষ হয়। করোনার কারনে মুক্তি দিতে দেরি হয়। এখন তো পরিস্থিতি স্বাভাবিক কিছুটা। প্রেক্ষাগৃহ খুলছে। এবার ৮ অক্টোবর মুক্তি পাচ্ছে ‘পদ্মাপুরাণ’। যথাসম্ভব বেশি প্রেক্ষাগৃহে ছবিটি মুক্তির চেষ্টা চালাচ্ছি।

প্রশ্ন: এই ছবির বিষয় কী?
উত্তর: ‘পদ্মাপুরাণ’ ছবির বিষয় নদী-তীরবর্তী মানুষের বদলে যাওয়া জীবন। বাংলাদেশ এক সময় নদী-নির্ভর দেশ ছিল। সময়ের বিবর্তনে নদী তার জৌলুস হারিয়েছে। বদলে গেছে নদী-তীরবর্তী জীবনের গল্পগুলো। এখানে আমরা পদ্মানদীর সে কাল ও এ কালের গল্প বলেছি।

প্রশ্ন: কারা অভিনয় করছেন?
উত্তর: শম্পা রেজা, প্রসূন আজাদ, সুমিত সেনগুপ্ত, সাদিয়া মাহি, হেদায়েত নান্নু, সূচনা সিকদার, রেশমী, জয়রাজ, কায়েস চৌধুরী, হাসি মুন সহ আরও অনেকে।

প্রশ্ন: এর পর ‘প্রীতিলতা’?
উত্তর: হ্যাঁ। বিপ্লবী প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের জীবন অবলম্বনে নির্মিত হচ্ছে ‘প্রীতিলতা’।

প্রশ্ন: সে খবর অনেকেই জানে। এই ছবির পোস্টার উন্মোচিত হতেই চতুর্দিকে আলোচনা শুরু হয়। আলোচনার কারণ, বাংলাদেশের বাণিজ্যিক ছবির নায়িকা পরীমনি।

উত্তর: প্রীতিলতাকে নিয়ে সিনেমা বানানোর পরিকল্পনা বেশ পুরনো। পাঁচ বছর সময় নিয়েছি আমরা প্রীতিলতাকে সেলুলয়েডে আনতে। ১০০ বছর পুরনো ইতিহাসের গল্প বলবে এই ছবি। আমাদের সিনেমার লেখক, চিত্রনাট্যকার গোলাম রাব্বানী সঠিক ইতিহাস তুলে ধরার জন্য অনেক পরিশ্রম করেছেন। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের প্রথম নারী শহিদ বিপ্লবী প্রীতিলতার চরিত্রে আমরা পরীমনিকে নির্বাচন করেছি অনেক ভেবেচিন্তেই। আসলে আমরা আরও অনেকের সঙ্গেই কথা বলেছিলাম। অবশেষে পরীমনি চূড়ান্ত হয়। সে সময় অনেকেই একটু অবাক হয়েছিলেন। কেন পরীমনি? কিছুদিন আগে যখন আমরা প্রীতিলতা চরিত্রে পরীমনির লুক প্রকাশ করি, সত্যিই হইহই পড়ে যায়। এটা ছিল দর্শকদের জন্য ইদের উপহার আর সমালোচকদের জন্য প্রশ্নের উত্তর। যারা বলেছিলেন পরীমনি গ্ল্যামার ভেঙে বেরিয়ে আসতে পারবে না, তারাও লুক দেখে প্রশংসা করেছেন। আমাদের টিম প্রীতিলতার জন্য এটা একটা ভাললাগা।

প্রশ্ন: পরীমনির জা’মি’নের দাবিতে আপনি মুখর হন। সেটা কি শিল্পীর হে’ন’স্থায়? অথবা ছবির স্বা’র্থে?
উত্তর: পরীমনির সঙ্গে ‘প্রীতিলতা’ করতে গিয়েই পরিচয়। আমার কাছে তিনি একজন দারুণ অভিনেত্রী। অত্যন্ত মানবিক একজন মানুষ। প্রীতিলতা-র সেটে তার যে সহযোগিতা পেয়েছি সে ঋণ আমরা শোধ করতে পারব না। পরীমনির গ্রে’ফ’তার হওয়ার পরে আমরা তার পাশে ছিলাম মানবিক কারণেই। পরীমনি আমাদের প্রীতিলতা। তার মুক্তির জন্য আমরা আবেদন করেছিলাম কারণ এই মানুষটা সব সময় আমাদের পাশে ছিল।

প্রশ্ন: ‘প্রীতিলতা’ ছবির শ্যুটিং কতটা হয়েছে?
উত্তর: সিনেমার ৩৫% কাজ শেষ হয়েছে। আশা করি বাকি অংশ দ্রুত শেষ হয়ে যাবে। আমরা যতটুকু সম্ভব রিয়েল লকেশন-এ শ্যুটিং করার চেষ্টা করে যাচ্ছি। প্রীতিলতার জন্মস্থান চট্টগ্রামের ধলঘাটে কাজটা করার চেষ্টা করছি আমরা। দেখা যাক।

প্রশ্ন: অনেকে বলছেন ‘প্রীতিলতা’ সরকারি অনুদানে নির্মিত হচ্ছে। কিছু মিডিয়া’তেও বেরিয়েছে।
উত্তর: ভুল খবর। এটি একটি তথ্যদূষণ।

প্রশ্ন: পরীমনি তো এখন জা’মিন পেয়েছেন। তিনি কবে কাজ শুরু করবেন?

উত্তর: জা’মিনে মু’ক্তি পাওয়ার পর পরীমনির সঙ্গে আমাদের দেখা হয়েছে। আমরা তার মানসিক স্বাস্থ্যের দিকে খেয়াল রাখার চেষ্টা করছি। একটু সময় তো দিতে হবেই। তা ছাড়া তার সামান্য ওজন বেড়েছে, সেটাও একটা ব্যাপার। আমরা মানসিক ভাবে শ্যু’টের তারিখ স্থির করেছি। তবে সেটা কবে, এখনই বলতে চাই না। আশা করি খুব দ্রুতই পরীমনি কাজে ফিরবেন।

প্রশ্ন: বাংলাদেশে প্রিয় পরিচালক কারা?

উত্তর: জহির রায়হান। আলমগীর কবির। আমজাদ হোসেন। তারেক মাসুদ। গিয়াসউদ্দিন সেলিম। মোস্তফা সরওয়ার ফারুকী। আশফাক নিপুণ।

প্রশ্ন: অভিনেতা মোশারফ করিমকে কেমন লাগে? তার অভিনয়ে তো দুই বাংলাই এখন মুগ্ধ।

উত্তর: মোশারফের মতো শিল্পী কালেভদ্রে জন্মায়। আমি তার অনেক বড় ভক্ত। আমার ইচ্ছে আছে ভাইয়ের সঙ্গে কাজ করার। এছাড়াও চঞ্চল চৌধুরী, শাকিব খান, তারিক আনাম, ফজলুর রহমান বাবু, আনিসুর রহমান মিলন, নিশো, জয়া আহসান, বাঁধন, তিশা, পরী, মাহি, ববি, মম-র কাজ ভাল লাগে।